দীর্ঘ সময় বসে কাজ করা মারাত্বক স্বাস্থ্য ঝুকির কারন

0 234

প্রতিদিন আমরা একটা দীর্ঘ সময় ধরে বসে থাকি। বেশিরভাগ সময় অফিসের চেয়ারে কিংবা গাড়িতে অথবা বাসায়, দিনের একটি লম্বা সময়ই আমাদের বসে থেকে কাটাতে হয়। হোক সেটা ইচ্ছাকৃত বা অনিচ্ছাকৃত, মুলত বসে কাজ করার প্রবনতা আধুনিক সমাজ ব্যবস্থার শুরু থেকেই প্রচলিত হয়ে আসছে। যাইহোক, সাম্প্রতিক গবেষনায় দেখা গেছে দীর্ঘ সময় বসে কাজ করার ফলে স্বাস্থ্য ঝুকির আশংকা এতটাই প্রবল যা আগে কেউ কখনও ভাবেনি।

বর্তমান সময়ে মানুষ আগের থেকে অনেক বেশি সময় ধরে বসে থাকে

বসে থাকা ক্ষতিরকর এই কথাটা হঠাৎ করে শুনলে একটু হাস্যকর লাগতে পারে

মানবদেহের একটি স্বাভাবিক অঙ্গবিন্যাস হল বসে থাকা, অফিসে কাজের সময়, কারও সঙ্গে দেখা করা, বাসায় বই পড়া, মুভি দেখা, এমনকি যানবাহন ব্যবহারের ক্ষেত্রেও স্বাভাবিক অঙ্গবিন্যাস হল বসে থাকা।

যদিও, তার মানে এই নয় যে বসে থাকায় কোনো স্বাস্থ্য ঝুকি নেই। দুর্ভাগ্যবসত, দীর্ঘ সময় বসে থেকে কাজ করা আমাদের প্রতিদিনের একটা স্বাভাবিক অভ্যাসে পরিনত হয়েছে।

আসলে, একজন সাধারন অফিস কর্মী দিনে ৮-১০ ঘন্টার মতো অফিসে বসে কাজ করে থাকে। অন্যদিকে একজন কৃষক দিনে মাত্র ৩/৪ ঘন্টারও কম সময় বসে থাকে।

যত বেশি বসে থাকা, তত বেশি ওজন বৃদ্ধি

যখন শরীরের ওজন নিয়ন্ত্রনের ব্যাপারটি সামনে আসে, তখন কিছুটা খাদ্যাভ্যাস পরিবর্তন বা কিছু সময়ের ব্যায়ামের ফলেও আশানুরুপ ক্যালোরি ক্ষয় সম্ভব হয়ে ওঠে না। কারন, এরপরেই শুরু হয় বসে থেকে অফিসের কাজ করা।

এজন্যই বসে থাকা এবং মেদ বৃদ্ধি একে অপরের পরিপুরক।

বসে থাকা, অকাল মৃত্যুর কারন

হেলথলাইন নিউজলেটারের তথ্য মতে ১০ লাখেরও বেশি মানুষের উপর পর্যবেক্ষন করে দেখা গেছে, যারা দীর্ঘসময় বসে থাকে তাদের অকাল মৃত্যুর ঝুকি ২২ থেকে ৪৯%।

দীর্ঘ সময় বসে থাকা ক্যান্সারের কারন

আজকাল মনে হয় সবকিছুই ক্যান্সারের কারন, ধুমপান, মোবাইলফোন, অনিয়মিত ঔষধ সেবন।

কিন্তু বসে থাকা? হ্যা, American Institute of Cancer Research এর সাম্প্রতিক তথ্যমতে, অতিরিক্ত সময় বসে থাকা খুব বড় আকারে ক্যান্সারের ঝুকি বড়ায়।

এছাড়া, লম্বা সময় ধরে বসে থাকার ফলে আরও অনেক ধরনের স্বাস্থ্য ঝুকি রয়েছে। যেমন: দুরারোগ্য কোমর ব্যাথা, বুক ব্যাথা, ডায়বেটিকস, উচ্চ রক্তচাপ, হৃদরোগ, কর্মক্ষমতা হ্রাস, মাত্রাতিরিক্ত মেদ বৃদ্ধি ইত্যাদি।

বসে থেকে কাজ করার ফলে স্বাস্থ্য ঝুকি প্রতিরোধের উপায়

প্রশ্ন হল কিভাবে এই সকল স্বাস্থ্য ঝুকিগুলো এড়িয়ে চলা যায়? বিষেশজ্ঞদের মতে, কাজের মধ্যে প্রতি ৩০ মিনিট পরপর বিরতি নিতে হবে, একটু হাটাচলা করা এরপরে আবার কাজে বসে যাওয়া।

আমেরিকান হার্ট এসোসিয়েশন এই বিষয়ে যেটা বলে অনুপ্রানিত করে থাকে – “বসে থাকার তুলনায় মুভ করুন বেশি।” কিন্তু এটা কোন পরিপুর্ন গাইডলাইন নয় বলেছেন, কলম্বিয়া ইউনিভার্সিটির মেডিসিন ডিপার্টমেন্ট। তারা মনে করেন এই বিষয় থেকে পরিত্রানের উপায় খুজতে আরও অনেক গবেষনার দরকার। সুত্রসিএনএন

আমেরিকার একটি ক্লিনিকাল প্র্যাকটিস অর্গানাইজেশন MayoClinic এই বিষয়ে একটি সহজ সমাধান দিয়েছেন। তাদের মতে, যারা লম্বা সময় ধরে ডেস্ক জব করেন তারা একটি স্ট্যান্ডিং ডেস্ক ব্যাবহার করতে পারেন। অর্থাৎ দাড়িয়ে থেকে কাজ করা যায় এমন একটি টেবিল, যেখানে যার যার উচ্চতা অনুযায়ী টেবিলের পার্টগুলো এডজাস্ট করে নেয়া যাবে।

কিন্তু এই ধরনের স্ট্যান্ডিং ডেস্ক আমাদের দেশে কোথায় পাওয়া যাবে? আসলে বাংলাদেশে এই প্রোডাক্ট নিয়ে আগে কেউ কখনও ভাবেনি।

সম্প্রতি বাংলাদেশে স্ট্যান্ডিং ডেস্ক নিয়ে কাজ করছে একটি ইন্টেরিয়র ডিজাইন এন্ড ডেকোরেশন কোম্পানী – ইন্টেরিয়র স্কেচ। তাদের নতুন ব্র্যান্ড ইজিডেস্ক নামে এই পন্যটি তারা তৈরি করেছে।

ইজিডেস্কের ওয়েবসাইটঃ http://easydesk.xyz

– নাঈম জামান

মন্তব্য
Loading...